ভয়েস অব পটিয়া: পটিয়ার পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ে ৩০/৪০ জনের সংঘবদ্ধ পাহাড়ী বাহিনীর আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে। পাহাড়ে কাজ করতে আসা বেশ কয়েকজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মজীবী বলেন, অগ্নিছড়া, বুদবুদি ছড়া, হিলছিয়া খাল, শ্রীমাইয়ের আগা, দক্ষিনচালার মুখে পাহাড়ীরা বর্তমানে অস্ত্র নিয়ে অবস্থান করছে। ফলে চারদিকে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।


ভয়েস অব পটিয়া পটিয়ার কন্ঠ

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্ক: পটিয়ার পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ে ৩০/৪০ জনের সংঘবদ্ধ পাহাড়ী বাহিনীর আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে। পাহাড়ে কাজ করতে আসা বেশ কয়েকজন নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কর্মজীবী বলেন, অগ্নিছড়া, বুদবুদি ছড়া, হিলছিয়া খাল, শ্রীমাইয়ের আগা, দক্ষিনচালার মুখে পাহাড়ীরা বর্তমানে অস্ত্র নিয়ে অবস্থান করছে। ফলে চারদিকে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে। 

জানা যায়, পটিয়ার পূর্বাঞ্চলের পাহাড়ে প্রতিদিন অসংখ্য কর্মজীবী মানুষ সবজি, লেবু ও পেয়ারা বাগানে কাজ করতে আসেন। গত ৪/৫ দিন ধরে সেখানে পাহাড়ীয়া এলাকার কমলাছড়ির আবু তাহের ও নুরুল হকের নেতৃত্বে ৪০/৫০ জনের সংঘবদ্ধ একটি বাহিনী অসংখ্য কর্মজীবীকে ধরে গহীন অরন্যে নিয়ে যায়। সেখানে দুপুর থেকে সন্ধ্যা অবদি বেঁধে রেখে টাকা আদায়ের চেষ্টা করে। যারা টাকা দেয় তাদেরকে দ্রুত ছেড়ে দিলেও ৪/৫ জনকে ১দিন ১ রাত বেঁধে রাখে বলে ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে প্রতিকার প্রার্থনার করেছেন। 
গতবছরের এ সময়ে তারা খরনা থেকে এক হুজুরকে ধরে গভীর অরণ্যে নিয়ে গিয়েছিল। পটিয়ার খরনা, কচুয়াই ও হাইদগাঁও থেকে পাহাড়ে কাজ করতে যাওয়া কর্মজীবীদের এভাবে গত বছর বেধে রেখে টাকা আদায়ের কৌশল এবং বনবিভাগের পাহাড়গুলো থেকে পাহাড়ীরা গাছ কেটে নেওয়ার জন্য সেখানে অস্থায়ী বসতী গড়ে তুললে সেখানে বনবিভাগের লোকজনের সাথে তাদের সংঘর্ষ হয়। পরে তারা সেখান থেকে পালিয়ে যায়। বর্তমানে আবারো একই কায়দায় মানুষ বেধে টাকা আদায়ের কৌশল নেওয়ায় পাহাড়ের নিকতবর্তী এলাকাগুলোতে আতংক ছড়িয়ে পড়েছে।

এ ব্যাপারে পটিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রেফায়েত উল্লাহ চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করে হলে তিনি জানান, যারা সেখানে অপরাধের সাথে জড়িত তাদেরকে খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে।

Share To:

Voice of Patiya

Post A Comment:

0 comments so far,add yours

Note: Only a member of this blog may post a comment.