ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ ‘মা’ ছোট্ট একটি শব্দ। কিন্তু সুবিশাল এর পরিধি। সৃষ্টির আদিলগ্ন থেকে মধুর এ শব্দ শুধু মমতার নয়, ভালোবাসার আর নিরাপত্তার সর্বোচ্চ আধার। বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে রত্নগর্ভা মা অ্যাওয়ার্ড ২০১৭-ভূষিত হয়েছেন পটিয়া থেকে মহীয়সী চেমন আরা বেগম।

‘রত্নগর্ভা মা’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন পটিয়ার চেমন আরা বেগম

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ  ‘মা’ ছোট্ট একটি শব্দ। কিন্তু সুবিশাল এর পরিধি। সৃষ্টির আদিলগ্ন থেকে মধুর এ শব্দ শুধু মমতার নয়, ভালোবাসার আর নিরাপত্তার সর্বোচ্চ আধার। বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে রত্নগর্ভা মা অ্যাওয়ার্ড ২০১৭-এর জন্য মনোনীত হয়েছেন সারাদেশের ৫০ জন মা। এ উপলক্ষে প্রতিবছর আজাদ প্রোডাক্টস রত্নগর্ভাদের এই সম্মাননা দিয়ে থাকে। রাজধানীর ঢাকা ক্লাবের স্যামসন এইচ চৌধুরী সেন্টারে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে আজাদ প্রোডাক্টস প্রেজেন্টস ‘রত্নগর্ভা মা’ অ্যাওয়ার্ড ২০১৭ প্রদান অনুষ্ঠান বর্ণাঢ্য আয়োজনে সম্পন্ন হয়। এতে পটিয়া থেকে রত্নগর্ভা মা হিসেবে সম্মাননা পান মমতাময়ী, মহীয়সী চেমন আরা বেগম। 

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের প্রয়াত মেয়র আনিসুল হকের সহধর্মিনী রুবানা হক ও চলচ্চিত্র অভিনেতা ফারুক। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা ক্লাবের সাবেক সভাপতি খায়রুল মজিদ মামুন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন রত্নগর্ভা মা অ্যাওয়ার্ডের উদ্যোক্তা ও আজাদ প্রোডাক্টসের কর্ণধার জিয়াউর রহমান আজাদ, অনামিকা আজাদ ও বিলকিস জাহান প্রমুখ। আজাদ প্রোডাক্টসের কর্ণধার ও রত্নগর্ভা মা অ্যাওয়ার্ডের উদ্যোক্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘২০০৩ সালে এই অ্যাওয়ার্ড শুরু করা হয়েছে একটি সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে। এই অ্যাওয়ার্ড প্রদানের বিষয়টি বেশ সাড়া জাগিয়েছে। একজন মা পরিবারের প্রথম শিক্ষক। সুশিক্ষিত সন্তান গড়ার ক্ষেত্রে একজন মা-ই হচ্ছেন নিপুণ কারিগর। একজন ভালো সন্তান তৈরির নেপথ্যে চাই আদর্শ তথা রত্নগর্ভা মা। আমরা সেই রত্নগর্ভা মায়েদের সম্মাননা জানানোর জন্যই প্রতিবছর রত্নগর্ভা মায়েদের সম্মান জানাই।’ 

অনুষ্ঠানে পটিয়ার নাইখাইন গ্রামের প্রয়াত সরকারী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবদুল্লাহর স্ত্রী চেমন আরা বেগম তার ১১ সন্তানকে গ্রামের একজন সাধারণ নারী হয়েও উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে মানুষের মত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপনের স্বীকৃতি স্বরূপ এ সম্মাননা লাভ করেন। মহীয়সী এ নারীর সন্তানরা আজ সবাই বিভিন্ন উচ্চপদস্থ সরকারী চাকুরীজীবি, চিকিৎসক, প্রকৌশলী, শিক্ষক হিসেবে যথেষ্ট সুনামের অধিকারী। পটিয়ায় এ পরিবারটি এখন শিক্ষাক্ষেত্রে হাজার বছরের ইতিহাস ঐতিহ্য ও গৌরবের অংশীদার। 
‘রত্নগর্ভা মা’ অ্যাওয়ার্ড পেলেন পটিয়ার চেমন আরা বেগম

তাঁর প্রথম পুত্র মুহাম্মদ শহীদ উদ্দিন বর্তমানে উপ-পরিচালক পানি উন্নয়ন বোর্ডে, ২য় সন্তান মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন কক্সবাজারের মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, ৩য় সন্তান মুহাম্মদ শাহীন উদ্দীন বরিশাল চীফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট, ৪র্থ সন্তান নারী উন্নয়ন মূলক দপ্তর, ৫ম সন্তান মুহাম্মদ আলমগীর প্রিন্সিপাল সায়েন্টেফিক (পরিবেশ ও বন) পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়, ৬ষ্ঠ সন্তান সেলিনা আকতার সিনিয়র শিক্ষক বিএফ শাহীন কলেজ, ৭ম সন্তান ডা. গিয়াস উদ্দীন জুনিয়র কনসালটেন্ট চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল (শিক্ষা বিভাগ), ৮ম সন্তান আবুল কালাম আজাদ প্রভাষক (পদার্থ বিদ্যা বিভাগ) পটিয়া সরকারী কলেজ, ৯ম সন্তান আবু সাদাত মুহাম্মদ সায়েম সহকারী অধ্যাপক চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট), ১০ম সন্তান রেজিনা আকতার সহকারী শিক্ষক চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন উচ্চ বিদ্যালয় এন্ড কলেজ, কাপাসগোলা, চট্টগ্রাম, ১১ম সন্তান ডা. মুহাম্মদ ওমর কাইয়্যুম বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর হিসেবে কর্মরত রয়েছেন।

রত্নগর্ভা মা চেমন আরা বেগম খুবই সাধারণ আনড়ম্বরহীন একজন ধর্মভীরু নারী। তিনি চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার কুসুমপুরা গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। তৎকালীন সময়ে ধর্ণাঢ্য পরিবারে জন্ম গ্রহণ করলেও নাইখাইন গ্রামের একজন শিক্ষানুরাগী সরকারী কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবদুল্লাহর সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। প্রাতিষ্ঠানিক উচ্চ শিক্ষা বা কোনো ডিগ্রী না থাকলেও মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের অপার কৃপায় রত্নগর্ভা মা চেমন আরা বেগম তার অদম্য প্রচেষ্টা ও শিক্ষার প্রতি বিশেষ অনুরাগ থাকায় ১১ সন্তানের সবাইকেই উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে পুরো পটিয়ায় বিরল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন। তাঁর প্রতিটি সন্তান আজ স্ব-স্ব পেশায় প্রতিষ্ঠিত হয়ে পুরো দেশে আলো ছড়াচ্ছেন। 
তাঁর বড় সন্তান পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ শহীদ উদ্দীন বলেন, আমার মা একজন মহিয়সী নারী। তিনি আমাদেরকে যেমন উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করেছেন তেমনি আমাদের এলাকায় প্রতিবেশীদেরকেও শিক্ষিত করার জন্য উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি শিক্ষা ছাড়া কিছুই বুঝেন না। আমার মা মনে করেন, শিক্ষা বিহীন মানুষ অন্ধ। জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে সফল হতে হলে শিক্ষার কোন বিকল্প নেই। তাই তিনি সব সময় শিক্ষার উপর বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছেন বলেই আজ আমরা তার ১১ সন্তানই স্ব-স্ব ক্ষেত্রে সুপ্রতিষ্ঠিত। ৭ম সন্তান শিশু চিকিৎসক ডা. গিয়াস উদ্দিন বলেন, আমার মা আমাদেরকে লেখাপড়ার বিষয়ে কখনো কোন ছাড় দিতেন না। তাঁর সার্বক্ষণিক মনিটরিং’র কারণেই আজ আমাদের পরিবার শিক্ষাক্ষেত্রে মডেল। পটিয়ার জঙ্গলখাইন ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গাজী মুহাম্মদ ইদ্রিস বলেন, আমার ইউনিয়নে এ পরিবারটি একটি রোল মডেল। চেমন আরা বেগম রাজধানী ঢাকা থেকে রত্নগর্ভা মায়ের যে স্বীকৃতি পেয়েছেন তা সত্যিই যথার্থ হয়েছে। আমি তাঁকে অভিনন্দন জানাই।


পটিয়া সম্পর্কে জানতে আমাদের ফেসবুক পেজের সাথে থাকুন।
www.facebook.com/VoiceofPatiyaFans

Share To:

Voice of Patiya

Post A Comment:

0 comments so far,add yours