ভয়েস অব পটিয়ায় আপনাকে স্বাগতম | Welcome to Voice of Patiya
পটিয়ার মানচিত্র | Map of Patiya
পটিয়াকে জেলা চাই | Demanding Patiya as a District
শাহ আমানত সেতু | নতুন ব্রীজ | Shah Amanat Bridge
পটিয়া কেন্দ্রীয় স্মৃতিসৌধ | Patiya Central Cenotaph
কাতার ফুটবল বিশ্বকাপ ২০২২ | আজকের ম্যাচ
মরক্কো
বনাম
স্পেন
৬ ডিসেম্বর
রাত ৯টা
পর্তুগাল
বনাম
সুইজারল্যান্ড
৬ ডিসেম্বর
রাত ১টা
জমকালো আয়োজনে কাতার ফুটবল বিশ্বকাপের উদ্বোধন; World Cup; FIFA; Qatar World Cup 2022; FIFA 2022; Qatar 2022
কাতারের আল কোর আল বায়াত স্টেডিয়ামে ফুটবল বিশ্বকাপের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান / ছবি: TRTWorld

ভয়েস অব পটিয়া-স্পোর্টস ডেস্কঃ মরুভূমিতেও যে ফুটবল বিশ্বকাপ সম্ভব এক সময়ে যে প্রশ্ন শুনলে চোখ উঠতে পারত কপালে, সেটিকে বাস্তবে করে দেখিয়ে দিল কাতার। মাত্র ৩৪ কিলোমিটারের মধ্যে ৮টি স্টেডিয়াম নিয়ে জমকালো অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ফুটবল বিশ্বকাপের ২২তম আসর আয়োজনের শুভ উদ্বোধন করেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটি।
উপকূলে আঘাত হানছে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’; cyclone; sitrang
উপকূলে আঘাত হানছে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ উপকূলে আঘাত হানছে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’। সিত্রাং মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মনিটরিং সেল খোলা হয়েছে। 
মনিটরিং সেলের হটলাইন নাম্বার 01769010986, 0255029550, 0258153022
বাংলাদেশের উপকূলে আঘাত হানতে শুরু করেছে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং। আজ সন্ধ্যা ছয়টা নাগাদ ঘূর্ণিঝড়ের অগ্রভাগ পটুয়াখালীর কলাপাড়া-খেপুপাড়া উপকূলে আছড়ে পড়তে শুরু করে। রাত আটটা নাগাদ ঝড়টির কেন্দ্র উপকূল অতিক্রম করতে শুরু করতে পারে। এর প্রভাবে দেশের উপকূলীয় জেলাগুলোতে প্রচণ্ড ঝড়ো হাওয়া বইছে, হচ্ছে প্রচুর বৃষ্টিপাত। 

আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক ছানাউল হক মন্ডল জানিয়েছেন, ঘূর্ণিঝড়ের অগ্রভাগের প্রভাবে উপকূলে এমনকি ঢাকায়ও দমকা বাতাস রেকর্ড হচ্ছে। ঝড়ের কেন্দ্র এখনও সাগরে। কক্সবাজারে ৭৪ কি.মি প্রতি ঘন্টা গতিবেগে ঝড়ো হাওয়া রেকর্ড হয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, সিত্রাং বড় আকারের ঘূর্ণিঝড়। ঘূর্ণিঝড়টির প্রভাব অনেক বেশি হতে পারে। এ জন্য তারা তিনটি কারণের কথা বলছে। কারণ তিনটি হলো, ঘূর্ণিঝড়টির অগ্রবর্তী অংশ, অমাবস্যা তিথি ও বায়ুচাপ পার্থক্যের আধিক্য। 
ঘূর্ণিঝড়টি উপকূল পার হওয়ার সময় চট্টগ্রাম, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, ঝালকাঠি, নোয়াখালী, ফেনীর অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরগুলোতে স্বাভাবিক জোয়ার থেকে পাঁচ থেকে আট ফুট উঁচু জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা করছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।
ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’, ৭ নং বিপদসংকেত; cyclone; sitrang
ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’, ৭ নং বিপদসংকেত

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং এর প্রভাবে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরে ৭ নম্বর বিপদ সংকেত ও চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরে ৬ নং বিপদ সংকেত দেখাতে বলেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। সেই সাথে উপকূলীয় এলাকায় ভারী ভর্ষণ ও জলোচ্ছ্বাসও হতে পারে। মঙ্গলবার ভোররাত বা সকাল নাগাদ বরিশাল-চট্টগ্রাম উপকূল অতিক্রম করতে পারে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং।

এর আগে বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আরও শক্তিশালী হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ এ পরিণত হয়। সেই সময় সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৪ (চার) নং হুঁশিয়ারিং সংকেত দেখাতে বলা হয়। 

ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং উপকূল থেকে কয়েকশ কিলোমিটার দূরে থাকলেও এর প্রভাবে উপকূলীয় জেলাগুলোতে চলছে তুমুল বৃষ্টি এবং ঝড়ো হাওয়া। দেশের উপকূলীয় সব জেলাতেই দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করছে। অস্বাভাবিক জোয়ারে নোয়াখালীর উপকূলীয় তিন উপজেলা হাতিয়া, সুবর্ণচর ও কোম্পানীগঞ্জে অন্তত ১০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ইতোমধ্যে আশ্রয়ণ কেন্দ্রে আসতে শুরু করেছে মানুষ। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে দেশের বড় এলাকায় বৃষ্টি হচ্ছে। আবহাওয়া অধিদপ্তরের বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকলীয় এলাকার ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে দমকা/ঝড়ো বাতাস বয়ে যেতে পারে, সেই সাথে ভারি (৪৪-৮৮ মিলিমিটার) থেকে অতিভারি ৮৯ মিলিমিটারের বেশি) বর্ষণ হতে পারে। উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সব মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলেছে আবহাওয়া অফিস।  

এদিকে ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং আজ সন্ধ্যায় আঘাত হানবে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান। 
ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং নিয়ে সোমবার (২৪ অক্টোবর) সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের তিনি একথা জানান। তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় সিত্রাং সিভিয়ার সাইক্লোনে রূপান্তরিত হয়েছে। আবহাওয়াবিদের তথ্য অনুযায়ী, আজ সন্ধ্যায় এটি আঘাত হানবে। আগামীকাল মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে ৭টার মধ্যে উপকূল অতিক্রম করবে। 
তিনি আরো বলেন, সিত্রাং বাংলাদেশে আঘাত হানবে। ভারতে আঘাত হানার সম্ভাবনা নেই। সব থেকে বেশি আঘাত হানবে বরগুনা এবং পটুয়াখালী। 
ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’, ৪ নং হুঁশিয়ারি সংকেত; cyclone; sitrang
ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’, ৪ নং হুঁশিয়ারি সংকেত

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আরও শক্তিশালী হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ এ পরিণত হয়েছে। সমুদ্রবন্দরগুলোকে ৪ (চার) নং হুঁশিয়ারিং সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’ এর ফলে রোববার দিনভর উপকূলীয় জেলাগুলোর আকাশ ছিল মেঘাচ্ছন্ন। কোথাও কোথাও গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিও হচ্ছে। এদিকে, উপকূলীয় এলাকার নদ-নদীতে জোয়ারের পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে যাওয়ার আতঙ্কে রয়েছেন ওইসব এলাকার কয়েক লাখ মানুষ। 

আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত গভীর নিম্নচাপটি আরও উত্তর ও উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর ও ঘনীভূত হয়ে ঘূর্ণিঝড় ‘সিত্রাং’-এ পরিণত হয়ে পূর্ব-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে। এটি রোববার সন্ধ্যা ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৭০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৭১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭০০ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর দিকে অগ্রসর হতে পারে। 

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার, যা দমকা বা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর অশান্ত রয়েছে। ঘূর্ণিঝড়টির অগ্রবর্তী অংশের প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায় ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে দমকা বা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে ভারী (৪৪ থেকে ৮৮ মিলিমিটার) থেকে অতিভারী (৮৯ মিলিমিটারের বেশি) বর্ষণ হতে পারে বলে বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। 

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত নামিয়ে এর পরিবর্তে ৪ নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।
বাড়লো গণপরিবহনের ভাড়া; গণপরিবহন; ভাড়া; বাস;
বাড়লো গণপরিবহনের ভাড়া

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ গতকাল মধ্যরাতে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির পর মহানগরে প্রতি কিলোমিটারে তেলচালিত বাস ও মিনিবাসে ভাড়া ৩৫ পয়সা, দূরপাল্লায় বাস ভাড়া ৪০ পয়সা বাড়িয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)। 

আজ শনিবার (০৬ আগস্ট) বনানীতে বিআরটিএর কার্যালয়ে পরিবহন মালিক-সমিতির সঙ্গে বাসভাড়া বাড়ানোর বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।

রবিবার থেকে এ ভাড়া কার্যকর হবে। তবে গ্যাসচালিত যানবাহনের ক্ষেত্রে এ ভাড়া বৃদ্ধি প্রযোজ্য হবে না।

বিআরটিএ চেয়ারম্যান নূর মোহাম্মদ মজুমদার বলেন, ‘দেশে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির ফলে আমরা আজ বাসভাড়া পুনঃনির্ধারণী বৈঠক করেছি। পাশাপাশি আমদানি ব্যয় বাড়ায় বাসের বিভিন্ন সামগ্রীর মূল্যবৃদ্ধির কারণেও বাস মালিকদের কিছু দাবি ছিল। বৈঠকে সবার আলোচনা-পর্যালোচনার ভিত্তিতে এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি যে, এখন থেকে মহানগর পর্যায়ে কিলোমিটারে বাসে ২.৫০ টাকা, মিনিবাসে ২.৪০ টাকা, দূরপাল্লার বাসে কিলোমিটারপ্রতি ২.২০ টাকা ভাড়া কার্যকর হবে।’

উল্লেখ্য, মহানগর পর্যায়ে পূর্বে ভাড়া ছিল প্রতি কিলোমিটারে তেলচালিত বাসে ২.১৫ টাকা, মিনিবাসে ২.১০ টাকা, দূরপাল্লার বাসে ১.৮০ টাকা। এছাড়া সর্বনিম্ন ভাড়া ছিল বাসে ১০ টাকা, মিনিবাসে ৮ টাকা। 

বিআরটিএ ১৫ শতাংশ ভাড়া বাড়াতে চাইলেও পরিবহন মালিক সমিতির দাবি ছিল ৩০ শতাংশ ভাড়া বাড়ানোর।

বর্তমানে তেলচালিত বাস ভাড়া দূরপাল্লায় বেড়েছে ২২ শতাংশ। সিটি সার্ভিসে বেড়েছে ১৬ শতাংশ। 
এক লাফে ৫১% বাড়লো জ্বালানি তেলের দাম; জ্বালানি; জ্বালানী; তেল; ডিজেল; কেরোসিন; অকটেন; পেট্রোল
এক লাফে ৫১% বাড়লো জ্বালানি তেলের দাম

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ দেশে আবারো বাড়ানো হল জ্বালানি তেলের দাম। এক লাফে ডিজেল ও কেরোসিনের দাম ৪২.৫% বেড়ে হয়েছে প্রতি লিটার ১১৪ টাকা। পেট্রোলের দাম ৫১.১৬% বেড়ে প্রতি লিটারের দাম হয়েছে ১৩০ টাকা। অকটেনের দাম ৫১.৬৮% বেড়ে হয়েছে প্রতি লিটার ১৩৫ টাকা। 

বিশ্ববাজারের সাথে সমন্বয় করে এ দাম বাড়ানো হয়েছে বলে জানায় জ্বালানি মন্ত্রণালয়। 

আজ শুক্রবার মধ্যরাতের পর থেকে নতুন এ দাম কার্যকর হবে বলে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়েছে।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ঘোষণার পর শুক্রবার রাতে দেশের বিভিন্ন ফিলিং স্টেশনে তেল নিতে আসা মোটরসাইকেল চালকরা ভিড় জমিয়েছেন।


একবছর ধরে রেলসেবা বঞ্চিত চট্টগ্রাম-পটিয়া-দোহাজারীর ১০ হাজার যাত্রী; রেল; চট্টগ্রাম-দোহাজারী; চট্টগ্রাম-পটিয়া; দোহাজারী; পটিয়া; চট্টগ্রাম; ট্রেন; রেল; Rail; Train; Chittagong; Chattogram; Patiya; Dohazari; Coxsbazar
একবছর ধরে রেলসেবা বঞ্চিত চট্টগ্রাম-পটিয়া-দোহাজারীর ১০ হাজার যাত্রী

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ এক বছরের বেশি সময় ধরে বন্ধ চট্টগ্রাম-পটিয়া-দোহাজারী রুটের লোকাল ট্রেন। ২০১৮ এর শেষের দিকে ঘটা করে চালু হওয়া দু্ই জোড়া যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচল এই রুটে বন্ধ থাকায় দূর্ভোগে পড়েছেন অত্র অঞ্চলের প্রায় ১০ হাজার রেলযাত্রী। 

প্রায় বছরখানেক আগেও ভোরের ট্রেন ধরে চট্টগ্রাম শহরে যাতায়াতের সহজ ও নিরাপদ মাধ্যম ছিল এ দুজোড়া লোকাল ট্রেন। বর্তমানে কেবলমাত্র একটি ডেমু ট্রেন চালু রয়েছে এই রুটে যা চলছে মাত্র কয়েকটি বগি নিয়ে তাও অনিয়মিত, যাতে যাত্রীধারণ ক্ষমতা পূর্বের লোকাল ট্রেনের ১ শতাংশেরও কম। 

চট্টগ্রাম-পটিয়া-দোহাজারী রেল রুটে রয়েছে ১৪টি স্টেশন। স্টেশনগুলো হচ্ছেঃ- দোহাজারী, হাশিমপুর, খানহাট, কাঞ্চননগর, খরনা, চক্রশালা, পটিয়া, ধলঘাট, বেঙ্গুরা, গোমদন্ডী, জানালীহাট, ষোলশহর, ঝাউতলা, চট্টগ্রাম। এ স্টেশনগুলো থেকে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজারের অধিক রেলযাত্রী যাতায়াত করতেন। কিন্তু বর্তমানে লোকাল ট্রেনজোড়া চলাচল বন্ধ থাকায় রেলসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন বৃহত্তর এ অঞ্চলের মানুষজন। 

রেলযাত্রীরা বলেন, ‘ভোরের ট্রেন ধরে সকাল সকাল চট্টগ্রাম শহরে যেতাম। নিরাপদ ও সহনশীল ভাড়া হওয়ার কারণে রেলে যাত্রীসংখ্যা ছিল প্রচুর। শুধু দোহাজারী স্টেশন থেকেই প্রতিদিন গড়ে প্রায় পাঁচ শতাধিক যাত্রী যাতায়াত করলে লোকাল ট্রেনে। এ ট্রেনগুলো বন্ধ থাকায় এখন ভোগান্তিতে পড়েছি।’ 

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ‘করোনাকালীন বন্ধ হয়ে যায় এই রুটের দুজোড়া লোকাল ট্রেন। এরপর এটি এখন অবধি চালু করা হয় নি। টিটি, গার্ডসহ লোকবল সংকটের কারণে চালু করা যাচ্ছে না বলে জানায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। লোকবল পেলেই চালু হবে বন্ধ হয়ে যাওয়া লোকাল ট্রেন দুটি।’
পবিত্র হজ্ব : লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত আরাফা’র ময়দান; হজ্ব; আরাফা; মিনা; মুজদালিফা; Hajj; Arafa; Mina; Muzdalifa;Kurbani; EId Al Adha
পবিত্র হজ্ব : লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখরিত আরাফা’র ময়দান

ভয়েস অব পটিয়া-ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত আরাফা’র ময়দান। পবিত্র হজ্বের আনুষ্ঠানিকতা শুরু। 

এ বছর পবিত্র হজ্ব পালন করেছেন বিশ্বের বিভিন্ন দেশের ৮ লাখ ৯৯ হাজার ৩৫৩ জন মুসলিম। সৌদি আরবের পরিসংখ্যান ব্যুরোর দেওয়া বিবৃতির অনুযায়ী হজ্ব পালনকারীদের মধ্যে ১ লাখ ১৯ হাজার ৪৩৪ জন সৌদি আরবের আবাসিক এবং অনাবাসিক নাগরিক। 
হজ্ব পালন করা বিদেশীর সংখ্যা ৭ লাখ ৭৯ হাজার ৯১৯ জন। এদের মধ্যে পুরুষের সংখ্যা ৪ লাখ ৮৬ হাজার ৪৫৮ জন এবং নারীর সংখ্যা ৪ লাখ ১২ হাজার ৮৯৫ জন।

এ বছর ১৪৪৩ হিজরি সনের পবিত্র হজ্ব পালন করা হচ্ছে। গত দুই বছর বিরতির পর সারাবিশ্ব থেকে ১০ লাখ হজ্বযাত্রীকে হজ্বের অনুমতি দেয় সৌদি সরকার। প্রতি হিজরী বছরের ৯ জিলহজ্ব সমগ্র মুসলিম উম্মাহ হজ্ব পালনে ঐতিহাসিক আরাফা’র ময়দানে উপস্থিত হন। এবারের হজ্ব পালনে সর্বমোট ৮ লাখ ৯৯ হাজার ৩৫৩ জন মুসলমান আরাফা’র ময়দানে উপস্থিত হন।

হজ্ব লাইভ >>

কুরবানীর পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ; ঈদ উল আযহা; ঈদ; চামড়া; কুরবানী; গরু; ছাগল; খাসি; উট; ভেড়া; দুম্বা; চামড়া; শিল্প; Cow; Goat; Camel; Sheep; Bakri; Leather; Leather industry; Kurbani; Qurbani; Eid Al Adha; Eid
কুরবানীর পশুর চামড়ার দাম নির্ধারণ

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ আসন্ন কুরবানীর পশুর কাঁচা চামড়ার দাম নির্ধারণ করেছে সরকার। এবারের কুরবানীর লবণযুক্ত প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার দাম ঢাকায় ৪৭ থেকে ৫২ টাকা এবং ঢাকার বাইরে ৪০ থেকে ৪৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। 

আজ মঙ্গলবার (০৫ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় এক ভার্চুয়াল মিটিং শেষে এ দাম ঘোষণা করেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। তিনি জানান, ঢাকায় গরুর লবণযুক্ত চামড়ার দাম প্রতি বর্গফুট ৪৭ থেকে ৫২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। যা গত বছর ছিল ৪০ থেকে ৪৫ টাকা। একই চামড়া ঢাকার বাইরে প্রতি বর্গফুট ৪০ থেকে ৪৪ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে, যা গত বছর ছিল ৩৩ থেকে ৩৭ টাকা। 

এছাড়া সারাদেশে খাসির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি বর্গফুট ১৮ থেকে ২০ টাকা, যা গত বছর ছিল ১৫ থেকে ১৭ টাকা। পাশাপাশি প্রতি বর্গফুট বকরির চামড়ার দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ১২ থেকে ১৪ টাকা, যা গত বছরও একই ছিল।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, চামড়ায় লবণ দেওয়ার বিষয়টিতে গুরুত্বারোপ করতে হবে। সামনে একটি জুমার দিন রয়েছে সেদিন যদি জুমার খুতবায় চামড়ায় লবণ দেওয়ার বিষয়টি সম্পর্কে বলা হয়, তাহলে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বাড়বে। 

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব তপন কান্তি ঘোষের সভাপতিত্বে সভায় অন্যদের মধ্যে ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন তথ্যসচিব মোঃ মকবুল হোসেন, শিল্পসচিব জাকিয়া সুলতানা, ভোক্তা অধিকারের মহাপরিচালক এএইচএম শফিকুজ্জামান, বাংলাদেশ ট্যানার্স অ্যাসোসিয়েশনের (বিটিএ) সভাপতি শাহীন আহমেদ সহ চামড়ার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত অন্যান্যরা।
জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখা গেছে, ১০ জুলাই পবিত্র ঈদ-উল-আযহা; ঈদ; ঈদ-উল-আযহা; আযহা; কুরবানী; কুরবানি; চামড়া; কুরবানীর চামড়া; Eid; Eid Al Adha; Kurbani; Quarbani; Bakri
জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখা গেছে, ১০ জুলাই পবিত্র ঈদ-উল-আযহা

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ দেশের আকাশে পবিত্র জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখা গেছে। আগামী ১০ জুলাই রবিবার সারাদেশে পালিত হবে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা তথা কুরবানীর ঈদ।

আজ বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় জাতীয় মসজিদ বায়তুল মোকাররমে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সভাকক্ষে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভায় এ ঘোষণা দেওয়া হয়। 

জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির সভার সভাপতি ধর্ম মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোহাম্মদ আব্দুল আওয়াল হাওলাদার বলেন, পবিত্র জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখা সম্পর্কে সব জেলা প্রশাসন, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যালয়, বিভাগীয় ও জেলা কার্যালয়গুলো, বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর এবং মহাকাশ গবেষণা ও দূর অনুধাবন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রাপ্ত তথ্য নিয়ে পর্যালোচনা করে আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের আকাশে হিজরী ১৪৪৩ সনের পবিত্র জিলহজ্ব মাসের চাঁদ দেখা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে।
এর ফলে আগামীকাল শুক্রবার (০১ জুলাই) থেকে পবিত্র জিলহজ্ব মাস গণনা শুরু হবে। এর পরিপ্রেক্ষিতে আগামী ১০ জুলাই (১০ জিলহজ্ব) সারাদেশে পবিত্র ঈদ-উল-আযহা তথা কুরবানীর ঈদ পালিত হবে।
শিশু-বয়স্ক-অসুস্থদের মসজিদে যাওয়া নিষেধ, মাস্ক না পরলে শাস্তি; পটিয়া; চট্টগ্রাম; Patiya; Chittagong; Chattogram; সংবাদ; সারাদেশ; ঢাকা; করোনা; করোনা ভাইরাস; Covid, Covid 19; Corona
শিশু-বয়স্ক-অসুস্থদের মসজিদে যাওয়া নিষেধ, মাস্ক না পরলে শাস্তি

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ করােনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবজনিত কারণে সারাদেশে করােনায় আক্রান্তের হার দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাওয়ায় বর্তমান পরিস্থিতি বিবেচনায় স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সুপারিশে কতিপয় বিধি-নিষেধ আরােপ করে নির্দেশনা জারি করেছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।
তৎপ্রেক্ষিতে দেশের বর্তমান প্রেক্ষাপটে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় কর্তৃক সকল ধর্মের ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এবং মসজিদসমূহে জামায়াতের নামাজের জন্য আবশ্যিকভাবে নিম্নবর্ণিত শর্তসমূহ পালনের জন্য অনুরােধ করেছে ধর্মবিষয়ক মন্ত্রণালয়।
 
১. মসজিদের প্রবেশদ্বারে হ্যান্ড স্যানিটাইজার/হাত ধােয়ার ব্যবস্থাসহ সাবান-পানি রাখতে হবে এবং আগত মুসল্লীদের কে অবশ্যই মাস্ক পরে মসজিদে আসতে হবে।

২. প্রত্যেককে নিজ নিজ বাসা থেকে ওযু করে, সুন্নাত নামাজ ঘরে আদায় করে মসজিদে আসতে হবে এবং ওজু করার সময় কমপক্ষে ২০ সেকেন্ড সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে।

৩. মসজিদে কার্পেট বিছানাে যাবে না। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের পূর্বে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা পরিস্কার করতে হবে, মুসল্লীগণ প্রত্যেককে নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসতে হবে।

৪. কাতারে নামাজে দাঁড়ানাের ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। 

৫. শিশু, বয়বৃদ্ধ, যে কোন অসুস্থ ব্যক্তি এবং অসুস্থদের সেবায় নিয়ােজিত ব্যক্তি জামায়াতে অংশগ্রহণ করা হতে বিরত থাকবে।

৬. সংক্রমণ রােধ নিশ্চিতকল্পে মসজিদের ওযুখানায় সাবান/হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখতে হবে। মসজিদে সংরক্ষিত জায়নামাজ ও টুপি ব্যবহার করা যাবে না।

৭. সর্বসাধারণের সুরক্ষা নিশ্চিতকল্পে, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ, স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এবং আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনীর নির্দেশনা অবশ্যই অনুসরণ করতে হবে।

৮. করােনা ভাইরাস মহামারি থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য নামাজ শেষে মহান রাব্বল আলামিনের দরবারে খতিব, ইমাম ও মুসল্লীগণ দোয়া করবেন এবং 

৯. সম্মানিত খতিব, ইমাম এবং মসজিদ পরিচালনা কমিটি বিষয়গুলাে বাস্তবায়ন নিশ্চিত করবেন।

এ সংক্রান্ত নির্দেশনা
 
পদ্মাপাড়ে সাজসাজ রব, উদ্বোধনের অপেক্ষায় স্বপ্নের পদ্মা সেতু; পদ্মা সেতু; পদ্মা; জাজিরা; মাওয়া; নদী; Padma; Padma Bridge; Jazeera; Mawa; China Major Bridge
পদ্মাপাড়ে সাজসাজ রব, উদ্বোধনের অপেক্ষায় স্বপ্নের পদ্মা সেতু

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ সকল জল্পনা-কল্পনা, নানামুখী চ্যালেঞ্জ, বাঁধা-বিপত্তির অবসান ঘটিয়ে ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন থেকে দৃশ্যমান যান চলাচলের উপযোগী স্বপ্নের পদ্মা সেতু এখন আলোকিত। উদ্বোধনের বাকি আর মাত্র কিছু ঘন্টা। রাত পোহালেই উদ্বোধন হবে স্বপ্নের পদ্মা সেতুর। ঘটবে পদ্মা পাড়ি দিতে যুগ-যুগান্তের ভোগান্তির অবসান। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের জন্য উন্মুক্ত হবে এক নতুন দ্বার।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের উচ্ছ্বাসে মুখোরিত পদ্মা সেতু নির্মাণের অন্যতম সাক্ষী মুন্সিগঞ্জের মাওয়া এলাকায় আনন্দে উদ্ভাসিত পদ্মাপাড়ের মানুষ। সর্বত্র সাজসাজ রব। 

সেতুর উদ্বোধনী ফলক উন্মোচন ও সুধী সমাবেশ হবে মুন্সিগঞ্জের মাওয়া পদ্মা পাড়ে। প্রস্তুত ফলক মঞ্চ। অনুষ্ঠানস্থল, ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ে সাজসজ্জায় ভরে উঠেছে।  সাজানো হয়েছে বিভিন্ন ব্যানার-ফেস্টুনে। সমাবেশস্থলের জন্য দৃষ্টিনন্দন মঞ্চ তৈরি, সেতুর নামফলক ও ম্যুরাল স্থাপনের কাজসহ সার্বিক ব্যবস্থাপনার কাজ শেষের পথে। অনুষ্ঠানস্থলের আশপাশে সৌন্দর্য বর্ধনের কাজও চলছে পুরোদমে। 

মাওয়া প্রান্তে ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরপর সেতু পেরিয়ে তিনি আসবেন জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজায়। সেখানে কয়েকটি স্থাপনার উদ্বোধন করে শিবচরের কাঁঠালবাড়িতে গিয়ে জনসভায় ভাষণ দেবেন। এ লক্ষ্যে জনসভাকে কেন্দ্র করে সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এসএসএফের নির্দেশে সকাল থেকেই সব ধরনের নৌযান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। যাত্রীদের বিকল্প নৌরুট ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। 

পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী সমাবেশস্থলে প্রায় দশ লক্ষাধিক জনসমাগমের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। ইতিমধ্যে পুরো মাওয়া এলাকায় জোরদার করা হয়েছে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পুলিশ, র‍্যাব, সেনাবাহিনীর পাশাপাশি কাজ করছে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থা। মোতায়েন করা হয়েছে হাইওয়ে পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ, জেলা পুলিশ, আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন, নৌ পুলিশ। বিভিন্ন পেট্রোলিং ছাড়াও আকাশপথে থাকবে র‍্যাবের হেলিকপ্টারের নজরদারি। 

উল্লেখ্য, ২০০১ সালের ০৪ জুলাই পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বরে এর মূল নির্মাণ কাজ শুরু হয়। দুই স্তর বিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট নির্মিত ট্রাসের এ সেতুর উপরের স্তরে চার লেনের সড়ক পথ এবং নিচের স্তরে একটি একক রেলপথ রয়েছে। পদ্মা সেতু প্রকল্পে পাঁচ হাজারের বেশি মানুষ কাজ করেছেন। এর মধ্যে চীনের ৭০০ এবং বাংলাদেশের প্রায় ৪ হাজার মানুষ কাজ করেছেন। ১৬০টির মতো স্থানীয় সহযোগী ঠিকাদার হিসেবে বিভিন্ন উপকরণ সরবরাহ করেছে। পদ্মা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা নদীর অববাহিকায় ৪২টি পিলার ও ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১টি স্প্যানের মাধ্যমে মূল অবকাঠামো তৈরি হয়। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ১৮ মিটার। এছাড়া পদ্মা সেতু প্রকল্পের আওতায় জাজিরা ও মাওয়া প্রান্তে এপ্রোচ সড়ক নির্মাণ করা হয়।

পদ্মা সেতু নির্মাণে মোট খরচ হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ দশমিক ৩৯ কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো তৈরি, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক, ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ সংরক্ষণ, বেতন-ভাতা ইত্যাদি। 
অর্থ বিভাগের সঙ্গে সেতু বিভাগের চুক্তি অনুযায়ী, সেতু নির্মাণে ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ দেয় সরকার। ১ শতাংশ সুদ হারে ৩৫ বছরের মধ্যে সেটি পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার কাঠামো নির্মাণের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কোম্পানী লিমিটেড। 

পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়নে কারিগরি জটিলতা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে শেষ পর্যন্ত নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হতে প্রায় সাড়ে সাত বছর লেগেছে।

গ্যালারী

ফিচারড

এডিটরস চয়েস

সারাদেশ

রাজনীতি

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি

পটিয়া সদর

ইউনিয়ন

গ্রাম-গঞ্জ

জাতীয়

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা