দক্ষিণ চট্টগ্রামের লেবুর সুখ্যাতি সর্বত্র। চলিত বর্ষা মৌসুমে নির্দিষ্ট সময়ে প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় লেবুর বাম্পার ফলন হয়েছে। লেবুর দাম ভালো থাকায় কৃষকেরাও মহাখুশি। দক্ষিণ চট্টগ্রামের পটিয়া ও বোয়ালখালীর পাহাড়ী এলাকায় প্রতি বছর প্রচুর লেবুর চাষ হয়ে থাকে। রমজান, ঈদ ও আবহাওয়া গরম থাকার কারণে লেবুর দাম চড়া থাকায় কৃষকরা খরচ পুষিয়ে লাভের মুখ দেখছেন বলে জানিয়েছেন অনেক লেবু চাষী। জনপ্রিয় ও ভিটামিন সি সমৃদ্ধ লেবু ফলটি দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐতিহ্যও বহন করে।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের লেবুর সুখ্যাতি দেশজুড়ে
ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্ক: দক্ষিণ চট্টগ্রামের লেবুর সুখ্যাতি সর্বত্র। চলিত বর্ষা মৌসুমে নির্দিষ্ট সময়ে প্রচুর বৃষ্টি হওয়ায় লেবুর বাম্পার ফলন হয়েছে। লেবুর দাম ভালো থাকায় কৃষকেরাও মহাখুশি।

দক্ষিণ চট্টগ্রামের পটিয়া ও বোয়ালখালীর পাহাড়ী এলাকায় প্রতি বছর প্রচুর লেবুর চাষ হয়ে থাকে। রমজান, ঈদ ও আবহাওয়া গরম থাকার কারণে লেবুর দাম চড়া থাকায় কৃষকরা খরচ পুষিয়ে লাভের মুখ দেখছেন বলে জানিয়েছেন অনেক লেবু চাষী। জনপ্রিয় ও ভিটামিন সি সমৃদ্ধ লেবু ফলটি দক্ষিণ চট্টগ্রামের ঐতিহ্যও বহন করে।

লেবু চাষীরা জানান, লেবু সাধারণত ৫ জাতের হয়ে থাকে। এগুলো হলো, কাগজী, পাতি, এলাচি, বাতাবি ও নতুন জাতের হাইব্রিড সিডলেস নামে একটি লেবু চাষ ও বর্তমানে হচ্ছে। উৎপাদিত লেবুগুলোর মধ্যে কাগজী লেবু ছোট আকৃতির হয়। বাণিজ্যিকভাবে লেবু উৎপাদন ও বিক্রি করে প্রতি বছরই লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করে এ এলাকার লেবু চাষীরা।

বাণিজ্যিকভাবে লেবু উৎপাদন ও বিক্রয় করার কারণে এ পাহাড়ের গ্রামগুলোকে লেবু গ্রামও অনেকেই বলে থাকেন। পাহাড়ীও সমতল উর্বরভূমি লেবু চাষের জন্য উপযোগী হওয়ায় বাণিজ্যিকভাবে লেবু চাষের প্রতি অনেকেই ঝুঁকে পড়েছেন। ফাল্গুন-চৈত্র মাসের লেবুর ফুল আসে এবং জ্যৈষ্ঠ আষাঢ় শ্রাবণ মাস জুড়ে ফলন পাওয়া যায়।

চলতি বছর লেবুর ফলন ভাল হওয়ায় রমজান মাস ও ঈদের চাহিদা মিটিয়ে অতিরিক্ত লেবুর প্রয়োজনীয়তার ফলে গত বছরের তুলনায় ৫/৬ গুন দাম বেশি পাচ্ছে লেবু চাষীরা। ফলে লেবু চাষীরা বেজায় খুশি। তারা জানান, প্রতিদিন প্রচুর লেবু বিক্রি হচ্ছে।

এখানকার উৎপাদিত লেবু চট্টগ্রামের বিভিন্ন উপজেলা, চট্টগ্রাম ও ঢাকার কয়েকটি বড় বড় বাজারে সরবরাহ করে থাকেন লেবু ব্যবসায়ীরা। প্রতিদিন সন্ধ্যার পর কমল মুন্সীর হাট, খরনা রাস্তার মাথা, কেলিশহর দারগা হাট, বোয়ালখালীর কড়লডেঙ্গা-গোমদণ্ডী-ফুলতল সড়ক হয়ে ৪/৫ টি লেবু ভর্তি ট্রাক পিক-আপ লেবু নিয়ে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে চলে যাওয়ার দৃশ্য দেখা যায়।

লেবু চাষীদের অভিযোগ পরিত্যক্ত পাহাড়ী ভূমি যদি লেবু চাষের আওতায় আনা হয় তাহলে উৎপাদিত লেবু দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিপুল পরিমাণে বিদেশেও রপ্তানী করা যেত। স্থানীয় লেবু চাষীরা আক্ষেপ করে বলেন, সবজি রাখার জন্য হিমাগার না থাকায় উৎপাদিত লেবু সহ বিভিন্ন ধরণের সবজি সংরক্ষণ করতে না পারার কারণে অনেক সময় কম দামে শাক সবজি বিক্রি করতে হয়।

Keep updated with us via www.facebook.com/VoiceofPatiyaFans
Share To:

Voice of Patiya

Post A Comment:

0 comments so far,add yours

Note: Only a member of this blog may post a comment.