"ইহুদি" ক্যাটাগরীর সকল আর্টিকেল
ইহুদি লেবেলটি সহ পোস্টগুলি দেখানো হচ্ছে৷ সকল পোস্ট দেখান
ফিলিস্তিনের আল-আকসায় ফের ইসরায়েলি সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৩১; ফিলিস্তিন; আল আকসা; বায়তুল মাকদিস; বায়তুল মোকাদ্দেস; জেরুজালেম; জেরুসালেম; পশ্চিম তীর; গাজা; ইহুদি; ইহুদি সন্ত্রাস; ইসরায়েলি সন্ত্রাস; Palestine; Al Aqsa; Baitul Makdis; Jerusalem; Jewish; Zionist; Jewish Terrorism; Israeli Terrorism
ফিলিস্তিনের আল-আকসায় ফের ইসরায়েলি সন্ত্রাসী হামলা, আহত ৩১

ভয়েস অব পটিয়া-ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ পবিত্র রমজান মাসে ফিলিস্তিনের পূর্ব জেরুজালেমের মসজিদুল আল-আকসায় আবারও হামলা চালিয়েছে অবৈধ দখলদার ইসরায়েলি সন্ত্রাসী বাহিনী। 
শুক্রবার (২২ এপ্রিল) মসজিদটিতে জুমার নামাযরত অবস্থায় মুসলিমদের উপর বর্বর এ হামলা চালায় ইহুদি সন্ত্রাসবাদী ইসরায়েলি পুলিশ। এ সময় তাদের সঙ্গে সংঘর্ষে তিন সাংবাদিকসহ অন্তত ৩১ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার বরাতে জানা যায়, শুক্রবার সকালে সম্পূর্ণ সন্ত্রাসী কায়দায় আটঘাট বেঁধে রাবার বুলেট ছুড়ে হামলা করতে করতে আল-আকসা মসজিদে প্রবেশ করে দখলদার ইসরায়েলি পুলিশ। এ সময় ফিলিস্তিনিরা আত্মরক্ষার্থে পাথর ছুড়ে প্রতিরোধের চেষ্টা করলে অতর্কিতভাবে গুলি, টিয়ারশেল, সাউন্ড গ্রেনেড নিক্ষেপ করে হামলা করে ইসরায়েলিরা। সংঘর্ষ চলাকালে মসজিদ প্রাঙ্গণে একটি গাছে আগুন জ্বালিয়ে দেয় সন্ত্রাসবাদী ইসরায়েলি বাহিনী। 

ফিলিস্তিনি রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছে, দখলদার ইসরায়েলি সন্ত্রাসবাদীদের হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ৩১ ফিলিস্তিনি আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে ১৪ জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।  

পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনিদের ভূমি থেকে উচ্ছেদ করে নতুন করে অবৈধ দখলের উদ্দেশ্যে দখলদার ইসরায়েলিদের চালানো সামরিক হামলার পরিপ্রেক্ষিতে চলমান উত্তেজনার মধ্যে মুসলিমদের প্রথম কিবলা আল-আকসা মসজিদ সম্প্রতি সহিংসতার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে উঠেছে। গত ১৮ এপ্রিল জেনিন শহরের কাছে আল-ইয়ামুন এলাকায় দখলদার ইসরায়েলি সন্ত্রাসবাদী বাহিনীর গুলিতে গুরুতর আহত হয় ইব্রামিক লেবেদি নামের ২০ বছরের এক ফিলিস্তিনি কিশোর। চারদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে শুক্রবার মৃত্যুবরণ করে ফিলিস্তিনি এ কিশোর। 

উল্লেখ্য, ১৯৪৮ সালে স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের ভূমি অবৈধভাবে দখলের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠা করা হয় ইহুদি সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র ইসরায়েল। এর ধারাবাহিকতায় ১৯৬৭ সালে আরবদের সঙ্গে যুদ্ধে আল-আকসা মসজিদ দখল করে নেয় তারা। যুদ্ধের পর আল-আকসা মসজিদ পুরোপুরি বন্ধ করে দিয়েছিল অবৈধভাবে দখলদার ইসরায়েলিরা। এমনকি ১৯৬৯ সালে মুসলিমদের প্রথম কিবলা পবিত্র এ মসজিটিতে অগ্নিসংযোগও করেছিল তারা। এরপর নানা বিধিনিষেধ আর শর্তপূরণের মাধমে সেখানে ইবাদতের সুযোগ পেতেন সাধারণ মুসল্লিরা। এরপরও একাধিকবার বিভিন্ন অজুহাতে দখলদার সন্ত্রাসবাদী ইসরায়েল আল-আকসা মসজিদটি ফিলিস্তিনিদের জন্য বন্ধ করে দেয়। ২০০৩ সালে ফিলিস্তিনের জেরুজালেমে অবৈধ বসতি স্থাপনকারী ইহুদিদের আল-আকসায় প্রবেশের অনুমতি দেয় দখলদার ইসরায়েলি কর্তৃপক্ষ। এ নিয়ে আবারও দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা তৈরি হয়। 

মসজিদুল আল-আকসা বা বায়তুল মাকদিস মুসলিমদের প্রথম কেবলা। অসংখ্য নবী-রাসূলের স্মৃতিবিজড়িত ঐতিহাসিক স্থান ও মর্যাদাপূর্ণ ইবাদতের জায়গা এটি। আল্লাহর রাসূল প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ ﷺ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ঐতিহাসিক মেরাজের রাতে মসজিদুল হারাম তথা পবিত্র কাবা শরীফ থেকে মসজিদুল আল-আকসা তথা বায়তুল মাকদিসে প্রথম সফর করেন। সেখান থেকে বোরাকে চড়ে উর্ধ্বাকাশে গমন করে আল্লাহর সান্নিধ্য লাভ করেন, যা মেরাজ নামে পরিচিত।

এদিকে ইহুদিরা মসজিদুল আল-আকসাকে তাদের টেম্পল মাউন্ট হিসেবে দাবি করে বলে, ‘এর নিচেই রয়েছে দুটি প্রাচীন ইহুদি মন্দির। অন্যদিকে খ্রিস্টানরাও স্থাপনাটিকে তাদের পবিত্র স্থান বলে দাবি করে আসছে।’ এই নিয়ে ফিলিস্তিনি মুসলিমদের উপর ইহুদি সন্ত্রাসবাদী অবৈধ দখলদার ইসরায়েলিরা যুগ যুগ ধরে হত্যা-দমন-পীড়ন বর্বরতা চালিয়ে আসছে।
মিলেছে আবু ত্বহা আদনানের সন্ধান; ঢাকা; রংপুর; সারাদেশ; ইসলামিক; পটিয়া; চট্টগ্রাম; Patiya; Chittagong; Chattogram; সংবাদ; সারাদেশ; ঢাকা; করোনা; করোনা ভাইরাস; Covid, Covid 19; Corona; বাজেট; বাজেট ২০২১; বাজেট ২০২২; বাজেট ২০২১-২২; বাংলাদেশ; সংসদ
ইসলামী স্কলার আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ ৮ দিন ধরে নিখোঁজ আলোচিত তরুণ ইসলামী স্কলার আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান হাফিজাহুল্লাহর সন্ধান পাওয়া গেছে। 

তিনি রংপুরে নিজ বাড়ীর উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছেন বলে জানা গেছে। 

রংপুর মহানগর পুলিশের (আরএমপি) ক্রাইম ডিভিশনের উপ-কমিশনার আবু মারুফ হোসেন জানান, ‘আবু ত্বহাকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ বিষয়ে দ্রুত সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বিস্তারিত জানানো হবে বলে জানান তিনি।’ 

আবু ত্বহার আইনজীবী ব্যারিস্টার এম. সরোয়ার রহমান বলেন, ‘নিখোঁজ আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান ও তাঁর সফরসঙ্গী-ড্রাইভারসহ চারজনকে পাওয়া গেছে। আজ ভোরে ফজরের নামাজ শেষে তিনি তার রংপুরের বাসায় ফিরেন। বাসায় ফিরার পর তিনি তাঁর স্ত্রীকে ফোনে জানান। তবে কীভাবে ফিরলেন, কোথা থেকে ফিরলেন এসব বিষয় আপাতত তাঁর স্ত্রীকে শেয়ার না করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।
ইসলামী স্কলার আবু ত্বহা আদনান নিখোঁজের ৫ দিন, উদ্ধারে নেই অগ্রগতি; ঢাকা; রংপুর; সারাদেশ; ইসলামিক; পটিয়া; চট্টগ্রাম; Patiya; Chittagong; Chattogram; সংবাদ; সারাদেশ; ঢাকা; করোনা; করোনা ভাইরাস; Covid, Covid 19; Corona; বাজেট; বাজেট ২০২১; বাজেট ২০২২; বাজেট ২০২১-২২; বাংলাদেশ; সংসদ
ইসলামী স্কলার আবু ত্বহা আদনান নিখোঁজের ৫ দিন, উদ্ধারে নেই অগ্রগতি

ভয়েস অব পটিয়া-ন্যাশনাল ডেস্কঃ আলোচিত তরুণ ইসলামী স্কলার আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান হাফিজাহুল্লাহ গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত থেকে নিখোঁজ রয়েছেন বলে অভিযোগ করেছে তাঁর পরিবার। 

নিখোঁজের ঘটনায় তাঁর পরিবারের পক্ষ থেকে রংপুর সদর থানায় একটি জিডি করা হয়েছে। 

এর আগে আবু ত্বহা আদনানের নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় রাজধানীর দারুসসালাম ও মিরপুর থানায় গেলে কোন থানাই জিডি বা মামলা নেয়নি বলে অভিযোগ করছে তাঁর পরিবার। তবে পুলিশ বলছে, তিনি ঠিক কোন জায়গা থেকে নিখোঁজ হয়েছেন, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলেই জিডি-মামলা কোনটাই নেয়া হয়নি।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, আবু ত্বহা আদনান এবং তাঁর ড্রাইভার সফর সঙ্গীসহ মোট ৪ জন গাড়িতে করে (ঢাকা মেট্রো-গ ৩৩-৪৩৪২) রংপুর থেকে ঢাকায় আসছিলেন। 
তাঁর স্ত্রী সাবেকুন নাহার গণমাধ্যমকে বলেন, ‘আবু ত্বহা আদনান বৃহস্পতিবার দুপুরে রংপুর থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছিলেন। রাত ২ টা ৩৭ মিনিটে তার সঙ্গে শেষ কথা হয় আমার। তিনি তখন বলেন, ‘ঢাকার কাছাকাছি চলে এসেছি’। এরপর রাত ৩টা থেকে ফোন বন্ধ পাই। এখনও নম্বরটি বন্ধ পাচ্ছি। নিখোঁজ হওয়ার সময় তার সঙ্গে গাড়িচালকসহ আরও তিনজন সহকর্মী ছিলেন।’ সেই তিনজন সহকর্মী এবং গাড়িটিরও কোনো খোঁজ পর্যন্ত পাওয়া যাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেছে তরুণ এই স্কলারের পরিবার। 

এর আগে তাঁর স্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, ‘কোথায় মামলা করব, কার কাছে অভিযোগ করব? মামলা করব কী, কেউ তো জিডিই নিতে রাজি হচ্ছে না। দারুসসালাম থানা কিংবা মিরপুর থানা কেউই মামলা নেয়নি। থানায় ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত হয়ে যাচ্ছি। কোনো থানাই দায়িত্ব নিচ্ছে না, এক থানা আরেক থানাকে দেখিয়ে দিচ্ছে।’

তবে এ ঘটনায় শেষ পর্যন্ত রবিবার সকালে রংপুর সদর থানায় একটি জিডি করেছেন আবু ত্বহা আদনানের মা। 

অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে দারুসসালাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোফায়েল আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘তিনি কোথায় হতে নিখোঁজ হয়েছেন, সেই লোকেশনটা তো আমরা নিশ্চিত না। তিনি গাবতলী থেকে নিখোঁজ হইছেন, সেটা তো আমরা জানি না। সেক্ষেত্রে যেখান থেকে তিনি রওনা হয়েছেন, সেই রংপুর অথবা তার ঢাকায় যেখানে বাসা, সেখানে জিডি হতে পারে বা মামলা হতে পারে।’

এদিকে আলোচিত এই তরুণ ইসলামী স্কলারের নিখোঁজের ঘটনায় তোলপাড় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। অনেকেই তাঁকে গুম করা হয়েছে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। তাঁকে অতিসত্বর ফিরিয়ে দেয়ার দাবি তুলেন নেটিজেনরা। 

উল্লেখ্য, আবু ত্বহা মুহাম্মদ আদনান কুরআন-সুন্নাহর আলোকে দাজ্জাল-ইহুদি-জায়নিস্ট মুভমেন্ট-ইসলামী অর্থনীতি-শেষ জামানা-কেয়ামত-মুসলিমদের মধ্যে ঐক্য প্রতিষ্ঠা ইত্যাদি বিষয়াবলীর উপর বিশ্লেষণধর্মী বক্তব্যের মাধ্যমে ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়েছেন ফেসবুক-ইউটিউবসহ নেটদুনিয়ায়। অনেকে তাঁর এই গভীরভাবাপন্ন-বিশ্লেষণধর্মী বক্তব্যগুলোর কারণে তিনি নিখোঁজ হয়ে থাকতে পারেন বলে আশঙ্কা করেছেন।
ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকা লক্ষ করে ইহুদি সন্ত্রাসীদের বর্বর হামলা, বোমার আঘাতে শিশুসহ নিহত ১১৯; ছবিঃ আল-জাজিরা

ভয়েস অব পটিয়া-ইন্টারন্যাশনাল ডেস্কঃ ইহুদি সন্ত্রাসীদের অতর্কিত বিমান, স্থল, বোমা হামলায় এই পর্যন্ত ফিলিস্তিনের গাজায় ৩১ শিশুসহ ১১৯ জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমগুলো। 
দখলদার অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সন্ত্রাসী হামলা থেকে বাঁচতে দিকবিদিক ছুটাছুটি করছেন ফিলিস্তিনি পরিবারগুলো। 

শুক্রবার হতে ইসরাইল সেনাবাহিনী ফিলিস্তিনির অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার নিকটে সেনা ও ট্যাঙ্ক মোতায়েন করে নিরপরাধ ফিলিস্তিনিদের স্থাপনা লক্ষ করে ব্যাপক আকারে বিমান ও স্থল হামলা চালায়। 

সোমবার মসজিদুল আকসায় ইহুদিবাদী সন্ত্রাসীদের হামলার পর থেকে এ পর্যন্ত ৩১ শিশুসহ কমপক্ষে ১১৯ জন ফিলিস্তিনি নিহত ও ৮৩০ জনেরও বেশি আহত হয়েছেন। 

ইসরাইলের আর্টিলারি হামলা থেকে বাঁচতে উত্তর গাজায় কয়েক'শ ফিলিস্তিনি পরিবার ইউএন পরিচালিত বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছে। ইসরাইলি সন্ত্রাসীদের এ হামলাকে ‘বর্বরতার হিংস্রতম রাত’ বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা। 

এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে শুক্রবার ভোরে ইসরাইলের অবৈধ দখলকৃত আশ্কেলন শহর লক্ষ্য করে রকেট হামলা চালিয়েছে ফিলিস্তিনের মুক্তিকামী সংগঠন ‘হামাস’। এ পর্যন্ত হামাস ১৫০০ এর অধিক রকেট হামলা চালিয়েছে ইহুদি সন্ত্রাসীদের লক্ষ্য করে। তবে এর বেশিরভাগ রকেট প্রতিহত করতে সক্ষম হয়েছে ইসরাইলী আইরন ডোম। এতে কমপক্ষে ৬ ইসরাইলী সন্ত্রাসী এবং একজন ভারতীয় নাগরিক মারা গেছে বলে জানিয়েছে সংবাদমাধ্যমগুলো। 
ইসরাইলী সেনাবাহিনী জানিয়েছে, গাজা থেকে ইসরাইলের দখলকৃত বিভিন্ন অবস্থানের দিকে কয়েকশো রকেট নিক্ষেপ করা হয়েছে এবং তারা পূর্ব গাজা উপত্যকার নিকটে হামলার জন্য আরও শক্তিবৃদ্ধি করেছে। 

ইতোমধ্যে পশ্চিম তীরের পাশাপাশি ইসরাইলের দখলদার বসতি স্থাপনকারী ও ফিলিস্তিনি নাগরিকদের মধ্যে সহিংসতা ছড়িয়ে পড়েছে। 
এদিকে নিরপরাধ ফিলিস্তিনিদের সমর্থনের দক্ষিণ লেবানন থেকে দখলদার ইসরাইলী বসতি লক্ষ করে তিনটি রকেট নিক্ষেপ করা হয়েছে। এতে হতাহতের কোন সংবাদ পাওয়া যায় নি।