নতুনব্রীজ থেকে যাত্রীবাহী বাস পটিয়া সদর পর্যন্ত ভাড়া ২০ টাকা হলেও গত কিছুদিন ধরে যাত্রীদের জিম্মি করে এক থেকে দেড়শ টাকা আদায় করা হচ্ছে। বিষয়টি পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেলুল কাদের ও ট্রাফিক পরিদর্শক (দক্ষিণ) আরিফুর রহমানকে জানানোর পর অভিযান চালিয়ে মোটরযান আইনে ১৩ বাসের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়।

অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, ১৩ বাসের বিরুদ্ধে মামলা

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ রিজার্ভের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল, ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া চট্টগ্রাম–কক্সবাজার মহাসড়কে গাড়ি চালানোসহ যাত্রীবাহী পরিবহনের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিনের অভিযোগের সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে ট্রাফিক পুলিশের শুভবুদ্ধির উদয় হয়েছে। গতকাল সকাল থেকে পটিয়া পোস্ট অফিস মোড় এলাকায় ট্রাফিক পরিদর্শক (দক্ষিণ) শাহ্ আরিফুর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১৩ টি বাসের বিরুদ্ধে মোটরযান আইনে মামলা করেছে।

নতুনব্রীজ-পটিয়া রুটে নিয়মিত অন্যায্য ভাড়া আদায়ের অভিযোগ পুরনো। এর বিরুদ্ধে মানববন্ধন, মিছিল-মিটিং, পত্র-পত্রিকায়-অনলাইনে লেখালেখি, সংশ্লিষ্ট প্রশাসন, ট্রাফিক পুলিশ, স্থানীয় সাংসদসহ জনপ্রতিনিধিদেরকে দফায় দফায় অভিযোগ প্রদান করলেও বাস্তবে কোন ব্যবস্থা নিতে দেখা যায়নি। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ে যেখানে সাধারণ যাত্রীদের নাভিশ্বাস চরমে তার প্রভাব প্রতিবারের মত ঈদের সময়েও পড়েছে। এবার ঈদের আগেরদিন থেকে শুরু করে এখনো পর্যন্ত পটিয়া থেকে নতুনব্রীজ রুটে রিজার্ভের নামে ২০ টাকার পরিবর্তে নেওয়া হচ্ছে এক থেকে দেড়শ টাকা ভাড়া।

পটিয়া, চন্দনাইশ, সাতকানিয়া, লোহাগাড়া ছাড়াও আনোয়ারা উপজেলার যাত্রীরা দীর্ঘদিন ধরে এসব অসাধু পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের কাছে বিভিন্নভাবে জিম্মি। 

যাত্রীদের অভিযোগ, চট্টগ্রাম–কক্সবাজার মহাসড়কে (আরাকান সড়কে) প্রতিনিয়ত যাত্রী হয়রানির পাশাপাশি রিজার্ভের নামে চলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়। রিজার্ভ ভাড়া নেওয়ার কারণে লোকাল যাত্রীদের পিকআপ ও ট্রাকে করে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। ঈদের এক সপ্তাহ পরও যাত্রী হয়রানি ও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধ না হওয়ায় সাধারণ যাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। 

যাত্রী ও ট্রাফিক সূত্রে জানা যায়, শাহ আমানত তৃতীয় সেতুর (নতুনব্রীজ) উত্তর পাড় থেকে যাত্রীবাহী বাস পটিয়া সদর পর্যন্ত ভাড়া ২০ টাকা হলেও গত কিছুদিন ধরে যাত্রীদের জিম্মি করে এক থেকে দেড়শ টাকা আদায় করা হচ্ছে। বিষয়টি পটিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাসেলুল কাদের ও ট্রাফিক পরিদর্শক (দক্ষিণ) আরিফুর রহমানকে জানানোর পর অভিযান চালিয়ে মোটরযান আইনে ১৩ বাসের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়। 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পটিয়া বাস পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের অর্থ সম্পাদক মোহাম্মদ ইয়াছিন ভয়েস অব পটিয়া’কে বলেন, অতি লোভী কিছু বাস ড্রাইভারের কারণে যাত্রীদের হয়রানি হতে হচ্ছে। বিষয়টি স্থায়ীভাবে সমাধান করতে হলে উপজেলা প্রশাসনকে উদ্যোগ নিতে হবে। উপজেলা প্রশাসন, যাত্রীকল্যাণ পরিষদ ও বাস পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের ত্রিপক্ষীয় বৈঠকের মাধ্যমে বিষয়টি সুরাহা করতে হবে। 

এ প্রসঙ্গে ট্রাফিক পরিদর্শক (দক্ষিণ) শাহ্ আরিফুর রহমান ভয়েস অব পটিয়া’কে বলেন, ঈদের কয়েকদিন আগে থেকে শুরু করে এক সপ্তাহ পর্যন্ত যাত্রীদের হয়রানি ও রিজার্ভের নামে অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের সত্যতা পাওয়ায় ১৩ যাত্রীবাহী বাসের বিরুদ্ধে মোটরযান আইনে মামলা দিয়েছি। তাছাড়া নতুনব্রীজ-পটিয়া রুটে নিয়মিত অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ আমরা পাচ্ছি। অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হলে অভিযান অব্যাহত থাকবে বলে তিনি জানান।


পটিয়া সম্পর্কে জানতে আমাদের ফেসবুক পেজের সাথে থাকুন।
Share To:

Voice of Patiya

Post A Comment:

0 comments so far,add yours

Note: Only a member of this blog may post a comment.