৬৩ বছর পর এবার দক্ষিণ চট্টগ্রামের পটিয়া ও বাঁশখালীর জলদিসহ সীতাকুণ্ডের সীতাপাহাড় ও কাছালংয়ের আবিষ্কৃত গ্যাসক্ষেত্রের প্রাথমিক জরিপ কাজ শেষে গ্যাস উত্তোলনের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন এন্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স)। চট্টগ্রামের চারটি গ্যাসক্ষেত্র যথাক্রমে-পটিয়ার বুদবুদি ছড়া, বাঁশখালীর জলদি, সীতাকুণ্ডের সীতাপাহাড় ও কাছালং।

 ১৯৬০ সালে বাঁশখালীর জলদির আবিষ্কৃত গ্যাস ক্ষেত্রের গ্যাস উত্তোলনের উদ্যোগ গ্রহণ করে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার ও কোরিয়া এবং রাশিয়ার সমন্বয়ে একটি বিশেষজ্ঞ দল। ঐ দলটি প্রাথমিক জরিপ কাজ চালিয়ে তথায় খনন করে বিপুল পরিমাণ অপরিশোধিত তেলও পায়। এ সময় বিশেষজ্ঞ দলটি তেল ও গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা সংবলিত একটি রিপোর্টও জমা দেয় তৎকালীন সময়ে জমা দেন।
ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্ক: ৬৩ বছর পর এবার দক্ষিণ চট্টগ্রামের পটিয়া ও বাঁশখালীর জলদিসহ সীতাকুণ্ডের সীতাপাহাড় ও কাছালংয়ের আবিষ্কৃত গ্যাসক্ষেত্রের প্রাথমিক জরিপ কাজ শেষে গ্যাস উত্তোলনের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন এন্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স)।

চট্টগ্রামের ২২এ, ২২বি ব্লকের চারটি গ্যাসক্ষেত্র যথাক্রমে-পটিয়ার বুদবুদি ছড়া, বাঁশখালীর জলদি, সীতাকুণ্ডের সীতাপাহাড় ও কাছালং।

বাপেক্সের ম্যানেজিং ডিরেক্টর (এমডি) আতিকুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। চট্টগ্রামের ২২এ ও ২২বি ব্লকের চারটি গ্যাসক্ষেত্রের গ্যাস উত্তোলনের জন্য বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সঙ্গে যোগাযোগ করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান। বিনিয়োগকারী পাওয়া গেলেই এই গ্যাসক্ষেত্রগুলো থেকে গ্যাস উত্তোলন করা সম্ভব হবে।

২০০৮ সালে কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে চট্টগ্রামের বাঁশখালীর জলদি ও পটিয়ার হাইদগাঁও গ্যাসক্ষেত্র নিয়ে সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়। ওই সময় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নির্দেশে পুনরায় শুরু হয় জরিপ কাজ। পর্যায়ক্রমে ২০১২ সালের শেষদিকে প্রাথমিক জরিপ কাজ শেষ করে বাপেক্স। পরবর্তীতে আবারও বাপেক্সের একটি বিশেষজ্ঞ দল জরিপ কাজ চালায়। বাপেক্সের এই জরিপের ওপর নির্ভর করে বর্তমান সরকারের নির্দেশে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম এক্সপ্লোরেশন এন্ড প্রোডাকশন কোম্পানি লিমিটেড (বাপেক্স) এই গ্যাসক্ষেত্রেগুলোর গ্যাস উত্তোলনের উদ্যোগ গ্রহণ করে বলে জানা গেছে।

১৯৫০ সালে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার হাইদগাঁওয়ের পাহাড়ি এলাকা শ্রীমাই বুদবুদিছড়া নামক স্থানে প্রথমে এই গ্যাসক্ষেত্রটি আবিষ্কৃত হয়। ওই বছর থেকেই পর্যায়ক্রমে কয়েক দফা প্রাথমিক জরিপ ও খনন কাজ চালানো হয় এবং গ্যাস প্রাপ্তির দ্বারপ্রান্তে এসে ১৯৫৩ সালের দিকে খননকৃত গ্যাস কূপের নাভিপথে ষড়যন্ত্রমূলকভাবে সীসা ঢালাই করে দেয় সংশ্লিষ্ট ব্রিটিশ বিদেশি কোম্পানিটি।

পটিয়ার হাইদগাঁওয়ে অবস্থিত বুদবুদিরছড়া গ্যাসক্ষেত্রে গিয়ে দেখা যায়, পাহাড়বেষ্টিত গ্যাসক্ষেত্রে পূর্বে খননকৃত স্থান থেকে অনবরত গ্যাস বের হচ্ছে এবং ঝলছে। তাছাড়া ওই গ্যাসক্ষেত্রের পাহাড়ের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া ছড়ার পানিতে বুদবুদ করে গ্যাস বের হতে দেখা গেছে।

১৯৬০ সালে বাঁশখালীর জলদির আবিষ্কৃত গ্যাস ক্ষেত্রের গ্যাস উত্তোলনের উদ্যোগ গ্রহণ করে তৎকালীন পাকিস্তান সরকার ও কোরিয়া এবং রাশিয়ার সমন্বয়ে একটি বিশেষজ্ঞ দল। ঐ দলটি প্রাথমিক জরিপ কাজ চালিয়ে উক্ত এলাকায় খনন করে বিপুল পরিমাণ অপরিশোধিত তেলও পায়। এ সময় বিশেষজ্ঞ দলটি তেল ও গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা সংবলিত একটি রিপোর্টও তৎকালীন সময়ে জমা দেন।

Keep updated with us via www.facebook.com/VoiceofPatiyaFans
Share To:

Voice of Patiya

Post A Comment:

0 comments so far,add yours

Note: Only a member of this blog may post a comment.