ভয়েস অব পটিয়াঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে রবিবার মধ্যরাত থেকেই দেশজুড়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। আজ (২৪ ডিসেম্বর) সকালে পটিয়ায় সেনাবাহিনী মোতয়েন করা হয়েছে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি আগামী ১ জানুয়ারি পর্যন্ত সেনা সদস্যরা ভোট তদারকিতে মাঠে থাকবে।

পটিয়ায় নেমেছে সেনাবাহিনী | একাদশ সংসদ নির্বাচন, চট্টগ্রাম ১২ পটিয়া

ভয়েস অব পটিয়া-নিউজ ডেস্কঃ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে রবিবার মধ্যরাত থেকেই দেশজুড়ে সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। আজ (২৪ ডিসেম্বর) সকালে পটিয়ায় সেনাবাহিনী মোতয়েন করা হয়েছে। আসন্ন সংসদ নির্বাচনে স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি আগামী ১ জানুয়ারি পর্যন্ত সেনা সদস্যরা ভোট তদারকিতে মাঠে থাকবে। 
ইসি জানায়, সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি টিমের সঙ্গে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। এ সম্পর্কে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদফতরের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আলমগীর কবির জানান, “রবিবার মধ্যরাত থেকেই সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য মাঠে নামার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা পেয়েই সশস্ত্র বাহিনী মাঠে নামার প্রস্তুতি নেয়।” চট্টগ্রাম গতকাল সন্ধ্যা থেকেই সেনাবাহিনীর সদস্যরা অবস্থান নিয়েছেন। তার আগে গতকাল বিকালের পর থেকেই সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের বিভিন্ন ক্যান্টনমেন্ট থেকে তাদের কর্তব্যস্থলে রওনা হতে দেখা গেছে। 

গত ১৩ ডিসেম্বর সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্তের কথা সাংবাদিকদের জানান নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। ওইদিন তিনি বলেন, ‘ইসি সিদ্ধান্ত নিয়েছে, ২৪ ডিসেম্বর সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েন করা হবে। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে কাজ করার জন্য সশস্ত্র বাহিনী ২ জানুয়ারি পর্যন্ত মাঠে থাকবে। এছাড়া, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় গত ১৮ ডিসেম্বর থেকে সারা দেশে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সদস্যদের মাঠে নামানো হয়েছে। এক হাজার ১৬ প্লাটুন বিজিবি এখন মাঠে কাজ করছে। 

ইসি আরো জানায়, সশস্ত্র বাহিনীর প্রতিটি টিমের সঙ্গে একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন। সশস্ত্র বাহিনী মোতায়েনের সিদ্ধান্তের পরই এ সংক্রান্ত নির্দেশনা সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। 

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আদলে এবারও ‘ইন এইড টু সিভিল পাওয়ার’-এর আওতায় সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হচ্ছে। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা কাজ করবেন। উল্লেখ্য, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২০১৩ সালের ২৬ ডিসেম্বর থেকে ২০১৪ সালের ৯ জানুয়ারি পর্যন্ত ১৫ দিন মাঠে ছিল সেনাবাহিনী। তারা সাধারণ এলাকায় একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও মেট্রোপলিটন এলাকায় একজন কমিশনারের অধীনে দায়িত্ব পালন করেন। ওই নির্বাচনে সারা দেশে প্রায় ৫০ হাজার সেনাসদস্য দায়িত্ব পালন করেন। এক্ষেত্রে প্রতিটি জেলায় একটি ব্যাটালিয়ন (৭৪০ সদস্য) ও প্রতিটি উপজেলায় এক প্লাটুন (৩৫ জন) সেনাসদস্য দায়িত্ব পালন করেন।


সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-১২ পটিয়া আসন সম্পর্কে জানতে এখানে ক্লিক করুন
পটিয়া সম্পর্কে জানতে ও জানাতে আমাদের ফেসবুক পেজের সাথে থাকুন।

Share To:

Voice of Patiya

Post A Comment:

0 comments so far,add yours

Note: Only a member of this blog may post a comment.